ইসলামপুরে মামলা প্রত্যাহার করতে বাদিকে আসামিদের হুমকি

59
জামালপুর

রোকনুজ্জামান সবুজ, জামালপুর 

জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় ব্রাক মেইল করে খোলা তালাক আদায়ের পর যৌতুকের দাবিতে নারী নির্যাতনের দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার করতে নানাবিধ হুমকি দেওয়া হচ্ছে মর্মে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন মামলার বাদির পরিবার।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের কড়াইতায়ের গ্রামের আলম ঢালী মেয়ে আকলিমা আক্তার কে একই এলাকার নাসির শেখের ছেলে বাবুল এর সাথে পারিবারিক আলোচনার সাপেক্ষে গত ২০১৭ সালে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই আকলিমা আক্তারের স্বামী বাবুল যৌতুক দাবি করে আসছিল। দরিদ্র পরিবারের মেয়ে আকলিমা আক্তার স্বামীর যৌতুকের দাবি টাকা না দিতে পারায় তাঁর উপর নেমে আসে অমানবিক নির্যাতন।

যৌতুকের টাকা না পেয়ে প্রায়ই স্বামী বাবুল আকলিমা আক্তারের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালায়। এরই একপর্যাযয়ে গত ২০১৯ সালে ১লা অক্টোবর যৌতুকের টাকার জন্য আকলিমা আক্তার কে বেধড়ক মারপিট করে স্বামী ও তার স্বজনরা। গুরুতর আহত অবস্থায় আকলিমা আক্তার কে ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে এ ঘটনায় নির্যাতনকারী স্বামী বাবল,শশুর নাসির শেখ শাশুড়ী মাজেদা বেগমসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দাযের করে ভুক্তভোগী আকলিমা আক্তার।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশের পিবিআই কে তদন্ত করে প্রতিবেদক দেয়ার নির্দেশ দেন। তদন্ত শেষে ওই বছরের ২৯ ডিসেম্বর ঘটনার সত্যতা রয়েছে মর্মে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক মো. জয়নাল আবেদীন।

আকলিমা আক্তারের বাবা আলম ঢালী জানান,মামলার থেকে রেহাই পেতে আসামি পক্ষরা স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সহায়তায় আপোষ মিমাংসায় উপনীত হয়। আকলিমা আক্তারকে ৮০ হাজার টাকা বুঝিয়ে দেয়া শর্তে মামলা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয়। এক পর্যায়ে আকলিমা আক্তার তার স্বামীকে খোলা তালাক দেয়।

পরবর্তীতে ৮০ হাজার টাকা আসামি পক্ষ আকলিমা আক্তারকে না দিয়ে তালবাহনা শুরু করে। এরপর আদালত থেকে আসামিরা জামিনে এসে আসামি পক্ষের প্রতিশ্রুতির ওই ৮০ হাজার না দিয়ে বিপরীতে মামলা প্রত্যাহার করতে বাদি ও তার পরিবারকে নানাবিধ হুমকি দিচ্ছে আসামি পক্ষের লোকজন। মামলা না প্রত্যাহার করলে আমাদের বিবিধ ক্ষয়ক্ষতি হবে বলে হুমকি দিচ্ছে আসামি ও তাদের লোকজন।

print