দশমিনার প্রতারক রুহুল আমীনের কোটি কোটি টাকা আত্মসাত

53
দশমিনার প্রতারক রুহুল আমীনের কোটি কোটি টাকা আত্মসাত

নকল ওয়েব সাইড তৈরি করে প্রতারনা
বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় করনের নামে

দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নামে নকল ওয়েবসাইট তৈরি করে বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারী করনের নামে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন একটি প্রতারক চক্র। ওই চক্রের প্রধান হোতা পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার ১২৫ নম্বর দক্ষিন চর শাহজালার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুহুল আমীন প্্িরন্স (৪৫)। গত মঙ্গলবার রাতে ঢাকার মতিঝিল এলাকা থেকে র‌্যাব-৩ রুহুল আমীন প্রিন্সকে আটক করার পর বেড়িয়ে আসছে তার ভয়াবহ প্রতারনার তথ্য। প্রতারনার টাকায় গড়ে তুলেছেন আলিশান বাড়ি, গাড়ি, শিল্প প্রতিষ্ঠান,এনজিও এবং টিভি ফ্রিজের শো-রুম। তার আটকের খবর দশমিনায় ছড়িয়ে পড়লে গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়।
উপজেলার চরবোরহান ইউনিয়নের দক্ষিন চরশাহজালাল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এই রুহুল আমিন। তিনি নকল ওয়েব সাইড তৈরি করে প্রতারনা করায় আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী বিশেষ প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাকে ঢাকার মতিঝিল থেকে র‌্যাব-৩ আটক করে।
স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বেতাগী সানকিপুর ইউনিয়নের মাছুয়াখালী গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল মজিদ এর ছেলে রুহুল আমীন প্রিন্স ছোট বেলা থেকেই বিভিন্ন প্রতারনার সাথে জড়িত হয়ে পরেন। ৭/৮ বছর আগে ঢাকা থেকে রুহুল আমীন দশমিনায় এসে ইলিংস নামে একটি হাতের ব্রেসলেট ব্যবসা শুরু করেন। পরে সেইভ দ্যা বাংলাদেশ নামে একটি এনজিও খুলে ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম শুরু করেন। এনজিওর সদস্যদের সঞ্চয় গ্রহনের নামে রুহুল আমীন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে ওই এনজিও বন্ধ ঘোষনা করেন। পরে তিনি দশমিনা উপজেলা সদরের নতুন ব্রীজ এলাকায় একটি মোটর সাইকেল,টিভি ফ্রিজের শো-রুম খুলে সেখানে বসেই বিভিন্ন বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় করনের কার্যক্রম পরিচালিত করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। একই সাথে তিনি উপজেলার মাছুয়াখালী এলাকায় কোটি টাকা ব্যয়ে একটি গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠা করেন। উপজেলার চরহোসনাবাদ এলাকার ঠিকাদার বেল্লাল হোসেন জানান, রুহুল আমীন তার মেয়ে তানজিলা আক্তারকে কপ্পুরকাঠী বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে চাকুরী দেয়ার নামে তার কাছ থেকে চার লাখ টাকা নিয়েছেন। দশমিনার ইলিয়াস খলিফার স্ত্রী ইয়ানুর বেগম জানান, দক্ষিন পাতারচর বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে চাকুরী দেয়ার কথা বলে দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা নিয়েছেন রুহুল আমীন। দশমিনায় এই রকম শতাধিক মানুষকে চাকরী দেয়ার কথা বলে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন রুহুল আমীন। বর্তমানে রুহুল আমীনের প্রত্যক্ষ সহায়তায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় নাম সর্বস্ব ১৩টি বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় গড়ে তোলা হয়। এই ব্যাপারে জানতে রুহুল আমীনের বাড়িতে গেলে তার কলেজ পড়ুয়া মেয়ে সুমাইয়া আক্তার জানান, তার বাবাকে মিথ্যা অভিযোগে ফাসাঁনো হয়েছে। চরবোরহান ইউপি চেয়ারম্যান নজির আহমেদ সরদার জানান, শুনেছি রুহুল আমীন অনেক মানুষের কাছ থেকে বিদ্যালয় জাতীয় করনের কথা বলে টাকা নিয়েছে। বেতাগী ইউপি চেয়ারম্যান মহিবুল আলম জানান, ছোট বেলা থেকেই রুহুল আমীন প্রতারনার সাথে জড়িত ছিলেন। পটুয়াখালী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: সায়েদুজ্জামান জানান, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে রুহুল আমীনের বিস্তারিত প্রতিবেদন চাওয়া হয়েছে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

print