দশমিনায় খালে পানি না থাকায় কৃষকরা দিশেহারা

57
দশমিনায় খালে পানি না থাকায় কৃষকরা দিশেহারা

দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার দশমিনা-বাউফল উপজেলা সীমান্তে বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়ার্ডে জোয়ার ভাটার খালে বাঁধ দিয়ে ব্রিজ নির্মান করায় পানির প্রবাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে খালে পানি না থাকায় বোরো চাষীসহ এলাকাবাসীর সর্বনাশ হচ্ছে। ঐ খালে বাঁধ দেয়ায় ৩ ইউনিয়নের ৮টি গ্রামে পানির অভাবে প্রায় ২০হাজার মানুষসহ বোরো চাষিরা দূর্ভোগে পড়েছে।

জানা যায়, উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়াডের দশমিনা-বাউফল সীমান্তের খালে বাঁধ দিয়ে বগী বাজার ব্রিজ নির্মানকাজ চলমান থাকায় দীর্ঘ সাড়ে ৩ মাস পর্যন্ত খালে পানি না থাকায় কৃষকের চরম পানি সংকট দেখা দিয়েছে। আর হাহাকার করছে খালের দুই পারে বসবাসরত মানুষ এবং পানির জন্য কৃষকরা বোরো চাষ করতে পারছে না। রোপা বোরো ধান এখন শুকিয়ে যাচ্ছে পানি অভাবে। বর্তমানে পুকুর ও ডোবার পানি দিয়ে সেচ দেয়ার কারনে পানির উৎস প্রায় শেষ হয়ে গেছে।

বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের দক্ষিন দাস পাড়া গ্রামের বোরো চাষি মোঃ জামাল হাওলাদার, মজিদ, কবির হোসেন ও জামাল মৃধা জানান, আমাদের পানি সংকটে বোর ধান এখন শুকিয়ে গেছে। ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য নিজাম রাড়ি জানান, খালের বাধ কেটে দিতে বারবার বলা হয়েছে কিন্তু ব্রিজ নির্মানকারীরা তা শুনছে না। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাফর আহাম্মেদ জানান, খালের বাঁধ কেটে পানি চলাচলের ব্যাবস্থা করার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও প্রকৌশলীকে অনুরোধ করছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মকবুল হোসেন জানান, বাঁধ কেটে পাইপের মাধ্যমে পানি চলাচলের জন্য ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আল আমিন জানান, খোঁজ খবর নিয়ে কৃষকের সুবিধার্থে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

print