দশমিনায় ব্রিজটি ৩০ বছর ধরে সংস্কার হচ্ছে না !

56
দশমিনায় ব্রিজটি ৩০ বছর ধরে সংস্কার হচ্ছে না !

নাসির আহমেদ, দশমিনা (পটুয়াখালী)

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় সবচেয়ে পরিচিত ও অতি পুরাতন ব্রিজটি প্রায় ৩০ বছর ধরে একই অবস্থায় খালের উপর দাড়িয়ে আছে।

উপজেলাবাসীর কাছে পরিচিত একটি নাম। নামের মতই ঠিক পুরাতন। একটু দূরে নতুন ব্রিজ নির্মাণ হওয়ায় ব্রিজটির নাম হয়েছিল পুরাতন ব্রিজ। তবে পুরাতন হলেও কদর কিন্তু কমেনি ব্রিজটির। সহজে যাতায়াতের জন্য মানুষের কাছে ব্রিজটির কদর রয়েছে।

উপজেলা সদরের পুরাতন ব্রিজটি উপজেলাবাসীর কাছে দীর্ঘদিনের স্মৃতি জড়িয়ে রয়েছে ব্রিজটিকে ঘিরে। উপজেলার নলখোলা বন্দরে এক সময় মিনি বন্দরের কার্যক্রম বেশ চাঙ্গা ছিল। তখন ব্রিজটির চাহিদা ছিল বেশ। বর্তমানে সড়ক যোগাযোগ উন্নত হওয়ায় ব্রিজের কোন উন্নতি হয়নি।

ব্রিজের নিচের খালটিতে এক সময় নাব্যতা সংকট ছিল না। ব্রিজটির সাথে ঘাটে বড় বড় কার্গো থাকতো। নানা ধরনের আমদানি রপ্তানি হত। এখন নদী পথে আমদানি রপ্তানী কম করা হচ্ছে। ফলে সংশ্লিষ্টদের কাছে কমেছে ব্রিজটির সংস্কারের চাহিদা। একটু দূরে নতুন একটি ব্রিজ নির্মাণ করায় স্থানীয় সরকার বিভাগের কাছে সংস্কারের প্রয়োজনের চাহিদা কমেছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। তবে নতুন ব্রিজ নামে যেটা পরিচিতি সেটাও নির্মাণ হয়েছে বেশ কয়েক বছর আগে।

বর্তমানে আয়রন ব্রিজটি এখন পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। প্রতি মাসেই সংস্কার করছে স্থানীয়রা। ব্রিজের বিভিন্ন অংশ ভেঙে নদীতে পরে যাচ্ছে। দীর্ঘ ৩০ বছর বড় ধরনের মেরামত না করায় আয়রন ব্রিজটি ভগ্ন দশায় পৌঁছেছে। জানা গেছে, স্থানীয় সরকার উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে লোহার ব্রিজটি ১৯৯০-৯১ সালে নির্মাণ করা হয়। লোহার কাঠামোয় তৈরি ব্রিজটি উপজেলা সদরের দশমিনা সদর-নলখোলা বন্দর খালের ওপর নির্মিত।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,উপজেলার সদরের কাচাঁবাজার-নলখোলা বন্দরের ব্যবসায়ী, ক্রেতা ও পথচারীদের পারপারের একমাত্র মাধ্যম এই আয়রন ব্রিজটি। উপজেলার এ ব্যস্ততম সড়কের ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজটি মাঝখান থেকে হেলে পড়েছে। বাজারে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাদের একমাত্র চলাচলের মাধ্যম আয়রন ব্রিজটি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মোটর সাইকেল ও রিক্সা পার হলেও কোন ভারি যানবাহন পার হতে পারছে না।

উপজেলা প্রকৌশলী জানান, মাটি পরীক্ষা ও ব্রিজের ডিজাইন করা হয়ে গেছে। আগামী ৬ মাসের মধ্যে ঠিকাদার নির্বাচিত করে ব্রিজ নির্মাণের কাজ শুরু করা হবে।

print