পারিবারিক বিরোধে সংঘর্ষ, তিন জন আহত

54
সংঘর্ষ

হিলি প্রতিনিধি
দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার নওদাপাড়া গ্রামে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় তিনজন গুরতর আহত হয়েছেন। আহত দুইজনকে হাকিমপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং মোসলেম উদ্দীনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এ ঘটনায় মোফাজ্জল হোসেন বাদী হয়ে হাকিমপুর থানায় আবুল কাশেম, আসলাম আলী, সাইফুল ইসলাম, শাহিনুর ইসলাম শাহিন, সাহাবুল ইসলাম, খাইরুল ইসলাম, নুর ইসলাম, এন্তাজ আলী, ছায়েদ আলী, আবুল কালাম আজাদ, জামিল হোসেন নামে এজাহার করেছেন। সকলেই হাকিমপুর উপজেলার নওদাপাড়া গ্রামের বাসীন্দা।

মোফাজ্জল হোসেন এজাহারে উল্লেখ করেন, তার ছোট মোসলেম উদ্দীনের সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়ে দীর্ঘ দিন যাবৎ উপরোক্ত আসামীদের সাথে বিরোধ চলছিলো। তার ছোট ভাই গত ২৭/১২/২০২০ ইং তারিখে নিজ বাড়ি হতে রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলো। এমতাবস্থায় দুপুর প্রায় ১টার দিকে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে একই ইদ্দেশ্যে বে-আইনী জনতায় দলবন্ধ হয়ে মোসলেম উদ্দীনের পথরোধ করে এবং অকথ্য ভাষায় গালাগাল শুরু করে। এক পর্যায়ে ১নং আসামীর আদেশে মোসলেম উদ্দীনকে হত্যার উদ্দেশ্যে ২নং আসামীর হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে মাথায় আঘাত করলে সে গুরুত্বর জখম হয়। আহত মোসলেম উদ্দীনকে বাঁচানোর জন্য তার স্ত্রী জুলেখা বেগম এগিয়ে আসলে তাকেও ৫ নং এবং ৬নং আসামীর হাতে থাকা বাঁশের লাঠি দিয়ে এলোপাথারীভাবে মারপিট শুরু করে। এমনকি তার পরনের কাপড় টেনে শ্লিলতা হানির চেষ্ঠা করে। মোসলেম উদ্দীন ও তার স্ত্রী জুলেখাকে বাঁচানোর জন্য মহিউল ইসলাম রাব্বী আসলে ৩নং আসামীর হাতে থাকা বাঁশের লাঠি দিয়ে তার মাথাতেও আঘাত করে। সেও গুরুত্বর জঘম হয়। পরে স্থানীয় জনগণ তাদের উদ্ধার করে হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। সেখানে মোসলেম উদ্দীনের অবস্থা গুরত্বর হওয়ায় চিকিৎসক তাকে রংপুর মেডিকেল হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করেন।

এদিকে হাকিমপুর থানার ওসি ফেরদৌস ওয়াহীদ জানান, নওদাপড়া গ্রামে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে একটি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। মোফাজ্জল হোসেন নামের একজন এজাহার দায়ের করেছে। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

print