ফেসবুকে প্রচারণা চালাচ্ছেন জীবন

1170

মাহাবুব আলম শ্রাবণ

ইতিহাস বিকৃতির জন্য মহা সম্মেলন দেখেছি বার বার। কিন্তু তাতে কি মানবিক বিবেক আর মানবিকতায় অনুধাবন করেছি ৭১। এটা পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের সেই নির্মমতা। তবে এতটুকু বুঝেছি মুজিব মানেই বাংলা। নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুকে দুর্ধর্ষ কিছু ছবিসহ এমন একটি লিখা পোষ্ট করেছেন আসন্ন ছাত্রলীগের সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদকের মনোনয়ন প্রার্থী মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা আনোয়ার হোসেন জীবন।

সূত্র বলছে, ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলনের ঘড়ি একেবারেই সন্নিকটে নিজের সর্বোচ্চ দিয়ে এবং সংগঠনের জন্য ত্যাগকে সামনে এনে অনেকে পেতে চান শীর্ষপদ। ছাত্রলীগের সম্মেলন ঘিরে মাঠের রাজনীতি থেকে শুরু করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এখন সরগরম। সম্মেলনের ঘোষণায় উচ্ছ্বাস পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীদের মাঝে। কাঙ্ক্ষিত পদ পেতে এরই মধ্যে মননোয়ন সংগ্রহ করেছেন অনেকে।

তবে কেনো এই ছবিগুলোসহ এমন একটি লিখা তিনি সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করলেন এই সম্পর্কিত তথ্য জানতে চাইলে আনোয়ার হোসেন জীবন বাংলা সংবাদ কে জানান, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সাথে সরাসরি যোগাযোগের পাশাপাশি আমি ফেসবুককে প্রচারণার সবচেয়ে ভাল মাধ্যম হিসেবে বিবেচনা করি। আমার মনে আছে ভারতে সাম্প্রতিক নির্বাচনে মোদি ফেসবুকে প্রচারণার মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন। তার প্রচার ছিল ‘আবকি বার মোদি কি সরকার!’ আমি মনে করি মোদীর মত এবারের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে মনোনয়নের জন্য ফেসবুকই সবচেয়ে বড় প্রচারণার মাধ্যম। তাই আমি এ মাধ্যমটির সর্বোচ্চ ব্যবহারের মাধ্যমে ছাত্রলীগের কাউন্সিলে সাধারন সম্পাদক পদে মনোনয়ন পেতে চাই।

print