মিডিয়ায় আলোচিত ছাত্রনেতা আনোয়ার হোসেন জীবন

744

নিজস্ব প্রতিবেদক

আসন্ন ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলন আবারো আলোচনায় সাধারণ সম্পাদক পদ প্রার্থী মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা “আনোয়ার হোসেন জীবন”। যোগ্যনেতা জীবন ভাইকে মূলনেতৃত্বে দেখতে চাই। ছাত্রনেতা জনে জন, মৃত্যুঞ্জয়ী একজন! এমন স্লোগানে এখন উত্তাল সোস্যাল মিডিয়া সহ ইলেকট্রনিক, প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়াগুলো। সম্প্রতি তিনি বক্তব্য দিয়েছেন জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেল আর টিভি ও চ্যানেল নাইনে সংবাদ প্রচার হবার পর পরই হাজার হাজার শেয়ার ও লাইক কমেন্টে সরগরম হয়ে যায় ফেসবুকসহ অনান্য সোস্যাল মিডিয়া। জীবনের বন্ধু মহল থেকে শুরু করে শুভাকাঙ্ক্ষীরা একে একে তাকে অভিনন্দন জানায়। ছাত্রলীগের সর্বোচ্চ অভিভাবক হিসেবে আগামী ১১ ও ১২ মে অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনের বিষয়ে সার্বক্ষণিক খোঁজ রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছাত্রলীগের নেতা বাছাই প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে নেতা নির্বাচনী প্রক্রিয়ার বিষয়ে ইতোমধ্যে স্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী চান না ছাত্রলীগ আর কোনো সিন্ডিকেট দ্বারা পরিচালিত হোক। সম্মেলনকে ঘিরে বুধবার চলতি মাসের ২ মে থেকে শুরু হয়ে ৪ মে শুক্রবার শেষ হয় মনোনয়ন ফরম বিতরণ কর্মসূচি। মনোনয়ন ফরম জমাদানের শেষ তারিখ ছিলো ৬ মে রবিবার রাত ৮টা পর্যন্ত। উল্লেখ্য, সম্মেলন উপলক্ষে ২ মে সাধারণ সম্পাদক মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন আনোয়ার হোসেন জীবন। ৫ তারিখ শনিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের ছাত্রলীগের প্রধান কার্যালয়ে মনোনয়ন জমা দেন জীবনসহ অনান্য পদ প্রত্যাশীরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচিত ছাত্রনেতা আনোয়ার হোসেন জীবন সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, আমি জানিনা আমি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হবো কিনা তবে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ থেকে জমা দেয়া পর্যন্ত দেখেছি মানুষ আমাকে কতটা ভালোবাসে। এক নতুন জীবনকে আবিষ্কার করেছি আমি। আমি নির্বাক এতো গুলো মানুষের দোয়া ও ভালোবাসায়, আমার আর কিছু চাওয়ার নেই। এই ভালোবাসার হাত গুলো আমাকে অনেক অনুপ্রেরণা যাগাবে, অদূর ভবিষ্যৎতে সুদীর্ঘ করবে আমার রাজনীতির পথকে।

print