যারা মনোনয়ন চেয়েছেন তাদের চেয়ে কোন অংশে কম নয় জীবন : হাসান সিদ্দিকী

2057

নিজস্ব প্রতিবেদক

আর মাত্র দুই দিন আগামী ১১ ও ১২ ই মে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হবে উপমহাদেশের বৃহত্তম ও ঐতিহ্যবাহী ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহীর সংসদের ২৯ তম জাতীয় সম্মেলন। বাংলাদেশ ছাত্রলীগে নতুন নেতৃত্বে সাধারন সম্পাদক পদে মনোনয়ন নিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অন্যতম সহ সম্পাদক মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা “আনোয়ার হোসেন জীবন” সম্মেলন উপলক্ষে পদ প্রত্যাশীদের আনাগোনায় মুখর ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় সহ আওয়ামী লীগের পার্টি অফিস। আসন্ন সম্মেলন নিয়ে প্রচার প্রচারণার ব্যাস্ত সময় পার করছেন এই সময়ের আলোচিত ছাত্রনেতা জীবন। হঠাৎ এক যাদুর কাঠির ছোঁয়া, এক বড় প্রাপ্তি এসে হাজির। ঢাকা কলেজের সাবেক বর্ষীয়ান ছাত্রনেতা ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য “হাসান সিদ্দিকী” সাফল্যগাথা রাজনীতির রাজসাক্ষী হয়ে আবারো পূর্বের নেয় হাত রাখলেন তার কাঁধে। সোশ্যাল মিডিয়ারর ফেসবুকে ছাত্রনেতা জীবন সম্পর্কিত একটি লিখা অবমুক্ত করলেন হাসান সিদ্দিকী। তিনি বলেন, একজন আনোয়ার হোসেন জীবন একদিনে তৈরি হয়নি।তিল তিল করে তার শ্রম মেধা সাংগঠনিক দক্ষতা ঘাত প্রতিঘাত সব কিছুর মাধ্যমে আজ জীবন। ২৯ তম সম্মলনে যারা মনোনয়ন চেয়েছেন আমি মনে তাদের মধ্যে কোন অংশে কম নয় জীবন। তাই কিছুই দেবার মতো নাই শুধু এতটুকু বলতে পারি যে শ্রম কখনো বেইমানি করে না। আর সাবেক কর্মী হিসাবে নীতি নিধারকদের বলবো প্রতিষ্ঠান দেখে বা তার সাবেক বড় পোস্ট না দেখে যে প্রকৃত সৈনিক ও যোগ্য ব্যক্তি তার হাতে তুলে দিবেন প্রিয় সংগঠনকে তাহলে কোন অভিমান থাকবে না রাজপথের শ্রম দেওয়া সেনিকদের। ঠিক খবরটি জীবনের কান স্পর্শ করতেই সংবাদ মাধ্যমের সাথে এই বিষয়ে কথা বলেন তিনি। তিনি জানান, আমি দীর্ঘ সময় ভাইয়ের সাথে রাজনীতি করেছি আমার অতীতের রাজনীতি এবং রাজপথের রাজসাক্ষী আমার বড় ভাই “হাসান সিদ্দিকী”। তিনি আমার রাজনীতির অন্যতম পদ পদর্শক, আমি জীবনের সবচেয়ে বড় দলিল। একটু আবেগ আপ্লুত হয়েই বললেন, ভাই আমাকে ভালোবাসে জানতাম তবে এতটা ভালোবাসেন বুঝতে পারিনি। আমি চিরজীবন ভাইয়ের কাছে ঋনী হয়ে গেলাম। আজকের মৃত্যুঞ্জয়ী ছাত্রনেতা আনোয়ার হোসেন জীবন হয়ে ওঠার পেছনে যার অবদান অনসীকার্য তিনি হাসান সিদ্দিকী।

print