রুপগঞ্জে ভূমিদস্যুদের ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের হামলায় যুবক নিহত

69
রুপগঞ্জে ভূমিদস্যুদের ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের হামলায় যুবক নিহত

অপু রহমান, নারায়ণগঞ্জ

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হত্যার উদ্দেশ্যে ও সপরিবারে বিনাশের লক্ষ্যে এক হামলায় একজনের মৃত্যুসহ তিনজন গুরুতর আহত হয়েছে। গত ২৭শে মার্চ ২০২১ইং এই ঘটনা ঘটে। বর্তমানে আহত তিনজন ব্যক্তি ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ করা হয়েছে।

রূপগঞ্জ থানায় অভিযোগপত্র হতে জানা যায়, রূপগঞ্জ উপজেলার ব্রাহ্মণখালী গ্রামের মোসাম্মৎ জোসনা বেগম ও তার স্বামী জহিরুল ইসলাম কচি তাদের ০৬ মাসের শিশু সন্তানকে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে গাউছিয়া এলাকার ভুলতায় যাওয়ার জন্য রওনা দিলে রূপগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ সালাউদ্দিন সাহেবের বাড়ির সামনের পাকা রাস্তায় পৌছামাত্র তাদের শত্রুরা পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী রামদা, চাপাতি, ছেনদা, চাইনিজ কুড়াল, ছুরি, লোহার রড, শাপল, ষ্টীলের পাইপ, লাঠি-সোটা ইত্যাদি দ্বারা অভিযোগকারীদের এলোপাতাড়ি প্রহার করতে থাকলে ভুক্তভোগীদের ছেলে মাঝখানে প্রতিবাদ করতে আসলে তাকেও সেই নরপিশাচরা বেদম প্রহার ও এবং এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এক পর্যায়ে ভুক্তভোগীর দেবর তথা ছোট ভাই তথা চাচা তাদের আটকাতে আসলে তাকেও ওই অঘোষিত ডাকাতদল কুপিয়ে জখম করে। হামলার এক পর্যায়ে মোঃ জোসনা বেগমকে চুলের মুঠি ধরে নিয়ে গিয়ে বিবস্ত্র করে শ্লীলতাহানি ঘটায়। এভাবে বাজে অবস্থা হওয়ার পর হামলার চিৎকার শুনে এলাকাবাসী আগমনী আভাসে সন্ত্রাসীরা তাদের নানা প্রকার হুমকী প্রদান করে নাম প্রকাশে বিরত থাকার কথা বলে তারা পালিয়ে যায়। তারপর ভুক্তভোগীদের বিভিন্ন আত্মীয়-স্বজন ও এলাকাবাসীর সহায়তায় স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার ডাক্তারগণ রোগীর অবস্থা গুরুতর দেখে ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করে। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডাক্তার ভুক্তভোগীর ছেলে রকিবুল ইসলাম রিয়ন (১৮) কে মৃত ঘোষণা করে।

অভিযুক্তরা হলো, ১। গিয়াস উদ্দিনের ছেলে রুবেল (৩০), ২। মৃত- আলেকের ছেলে সহিদুল ইসলাম মিঠু (৫২), ৩। গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মোবারক (২৮), ৪। মোবারকের স্ত্রী কাকলী (২৪), ৫। গিয়াস উদ্দিন (৫৮), ৬। রকিবুল ইসলাম ডিপটি (৫০), উভয় পিতা-মৃত আলেক, ৭। সহিদুল ইসলাম মিঠুর স্ত্রী মিনারা বেগম মিনু (৪০)। এদের সবাই হলো রূপগঞ্জ উপজেলার উত্তর ব্রাহ্মণখালীর বাসিন্দা।

এছাড়া অন্যান্য অভিযুক্তরা হলেন, ৮। মোঃ হুমায়ন (৩৮), ৯। মোঃ খায়রুল (৪০), উভয় পিতা- আঃ মতিন, ১০। আঃ মতিনের স্ত্রী দেলোয়ারা বেগম (৫৪)। এরা হলেন গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ থানার রাথুরা এলাকার বাসীন্দা।

আরও অভিযুক্তরা হলেন, ১১। মৃত আলেকের মেয়ে খালেদা চায়না (৪৮), ১২। গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে বীর হাটাবের বাসিন্দা নাজমীন (৩৭), ১৩। গিয়াস উদ্দিনের কন্যা ও মোস্তফার স্ত্রী সাবিনা (৩৪), ১৪। সহিদুল ইসলাম মিঠুর মেয়ে মম আক্তার (২০), ১৫। আলাউদ্দিন খাঁ’র পুত্র আজাহার (৪৮), ১৬। ও ১৭। চাঁদপুর জেলার বাসিন্দা হারুন মিয়ার ছেলে হাবিব (২০) ও রাকিব (১৮), ১৮। মোস্তফা (৪০) ১৯। রূপগঞ্জ থানার জাঙ্গীর এলাকার আয়েত আলীর পুত্র আলামিন (৪৫)

print